চন্দ্রঘোনা মিশন হাসপাতাল সড়কে ধ্বস যান চলাচল বন্ধ

0
16

কাজী মোশাররফ হোসেন, কাপ্তাই ::

কাপ্তাই উপজেলায় অবস্থিত চন্দ্রঘোনা খ্রীষ্টিয়ান মিশন হাসপাতাল সড়কের মাঝ বরাবর বিশাল ধস নেমেছে। ধসের ফলে এই সড়কে সকল প্রকার যান বাহন চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। যান চলাচল বন্ধ থাকায় হাসপাতালে রোগী আনানেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। পাশাপাশি দোভাষী বাজার ও লিচুবাগানেও মানুষ যাতায়াত করতে পারছেনা।

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে সড়কের দুই পাশে রিক্সা, অটো রিক্সা, ভ্যান, কার জীপ ইত্যাদি ছোট বড় গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে। যাতায়াতের কোন সুযোগ নেই। এখন গাড়ি নিয়ে যাতায়াত করতে হলে যে পথটি আগে ৫ সেকেন্ডে পার হওয়া যেত সেটি এখন ১০ কিলোমিটার পথ ঘুরে পার হতে হবে।

পাহাড়িকা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষক লাভলী বড়ুয়া জানান, এই সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পাহাড়িকা স্কুলের পাঁচ শতাধিক ছাত্রছাত্রী এই সড়ক পথে যাতায়াত করে থাকে। এখন সড়ক বিলীন হয়ে গেছে। তবে ধস নামা সড়কের একপাশে চিকন একটি পথ রয়েছে। ঐ পথে চলাচল করার সময় অনেক শিক্ষার্থী দুর্ঘটনায় পড়ে বলেও তিনি জানান। ব্যাপটিস্ট মিশন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নেলী রানী বড়ুয়া এই প্রতিনিধিকে বলেন, গত কয়েক মাস ধরেই সড়কটি মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। সড়ক সংস্কার শুরু হলেও কাজটি ছিল ধীর গতির। বর্তমানে সড়কটি ধসে পড়ায় ব্যাপটিস্ট মিশন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঁচ শতাধিক শিশু শিক্ষার্থী প্রচন্ড ঝুঁকি নিয়ে স্কুলে যাতায়াত করছে। সড়কের একপাশে যে সামান্য পায়ে হাঁট পথ রয়েছে সেটিও যে কোন মুহুর্তে ধসে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আর সেই সরু পথ ধসে পড়লে এই পথে পায়ে হাঁটার ব্যবস্থাও আর থাকবেনা।
এ ব্যাপারে চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবী বলেন, সড়কটি যেভাবে ধসে পড়েছে তা অল্প টাকায় সংস্কার করা সম্ভব নয়। এই কাজে বড় অর্থ বরাদ্ধ করতে হবে। রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ অথবা পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে পারে। সড়ক ধসের বিষয়টি আমরা উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছি। এখন যাদের সিদ্ধান্ত নেবার দায়িত্ব ও কর্তব্য তারা নিশ্চয়ই দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here