নওগাঁর নিয়ামতপুরে বৃদ্ধি পেয়েছে মাদক বিক্রয়

0
33

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স বাস্তবায়নের নির্দেশনায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী দেশজুড়ে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিলেও তা এখনো জিরো টলারেন্সে আসেনি।

তারই ধারাবাহিকতায় নিয়ামতপুর উপজেলায় তীব্র গতিতে বেড়েছে ভ্রাম্যমাণ মাদক ব্যবসায়ীর সংখ্যা, অনুসন্ধানে জানা যায় নিয়ামতপুর উপজেলার মাদকের প্রধান ডিলার বেশ কয়েকজন তার মধ্যে চন্দননগর ইউনিয়নের ছাতড়া সিংড়া গ্রামের (১) আব্দুল আলিম পিতা মৃত তামেজ উদ্দিন এবং আব্দুল আলিমের চাচা (২)পাতু একাধিক মাদক মামলার আসামি।

সম্প্রতি পাতুকে নিয়ামতপুর থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করতে ব্যার্থ হলে নওগাঁ জেলা ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজ্বতে প্রেরণ করলেও তার ভাতিজা আবদুল আলিম সহ এদের নিযুক্ত কয়েকজন সেলসম্যানের মাধ্যমে ব্যাপক হারে চলছে মাদকের রমরমা বানিজ্য।

স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি সহ রাজনৈতিক পরিচয়ে কিছু যুবক মটর সাইকেলে ভ্রাম্যমাণ ভাবে ছাতড়া বাজার সংলগ্ন দিয়াড়াপাড়া হইতে নিয়ামতপুর সদর সহ আসেপাশের এলাকায় ফেনসিডিল সহ বিভিন্ন ধরনের মাদক ছড়িয়ে দিচ্ছে পুরো উপজেলায়।

এদের মাধ্যমে উপজেলার সদর ইউনিয়ন সহ ভাবিচা,চন্দননগর,হাজীনগর,ও বাহাদুরপুর ইউনিয়নে দীর্ঘদিন ধরে চলছে এই ভ্রাম্যমাণ মাদকের রমরমা বানিজ্য।

সবসময় ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে এসব মাদক বিক্রেতা, এছাড়াও নিয়ামতপুর উপজেলার সদরে কয়েকজন যুবক রাজনৈতিক দলের কর্মী পরিচয়ে দলীয় কিছু ছাত্রলীগ ও চেয়ারম্যান পদপার্থী ব্যক্তিত্তের ছত্রছায়ায় চালিয়ে যাচ্ছে এসব মাদকের রমরমা বানিজ্য।

মাদক ব্যবসায়ীদের নিত্য নতুন কলাকৌশলের কাছে অনেকটাই অসহায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।
আন্ডারগ্রাউন্ড থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মাদক সেবিদের সাথে যোগাযোগ করে ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে উপজেলার সদর সহ আসেপাশের ইউনিয়নের পথে ঘাটে চলছে মাদক সরবরাহ।

আর এই মাদক সেবন এবং মাদকের ব্যবসার কারণে বেড়েই চলেছে বিভিন্ন অপরাধ মোবাইল ছিনতাই, আটো ভ্যান চুরি,বাইক চুরি, রোড ছিনতাই, সুশীল মানুষদের মাদক দিয়ে ট্যাপে ফেলা প্রেমিক যুগলকে আটকে রেখে টাকা পয়সা লুন্ঠনকারী সহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে যাচ্ছে এসব মাদক সেবন কারীরা নেশার টাকা জোগাড়ের জন্য কমিশন চুক্তিতে ফেনসিডিল, গাঁজা, ইয়াবা,ট্যাপেন্ডা,লোপেন্ডা ও মদ সরবরাহের কাজ করে যাচ্ছে।

এইভাবে চলতে থাকলে সুন্দর সুশীল যুবসমাজ ধংসের মুখে পড়তে আর বেশি সময় গুনতে হবেনা, তাই অতিশীঘ্রই প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছে সুশীল সমাজের সচেতন ব্যক্তিবর্গ অভিভাবকগণ ও এলাকাবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here