নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

0
33

মোঃ নাহিদ হাসান: ‘যারা মাঠে কাজ করবে, যাদের নেতা কর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা আছে, তাদেরকে নেতা বানাতে হবে। কোন বিদ্রোহী প্রার্থী, মাদকের সাথে সম্পৃক্ততা রয়েছে, দূর্নীতিবাজ, দলের সাথে বেইমানী করেছে এমন লোক সভাপতি সম্পাদক হতে পারেবে না।’ মঙ্গলবার ৩০ মার্চ বেলা ১০টায় নিয়াতপুর সরকারী কলেজ মাঠে উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম.কামাল হোসেন প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। এস.এম. কামাল হোসেন বলেন, ‘লোক দেখানো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা’ বিএনপির কাছে স্বার্থ হাসিলের হাতিয়ার। বিএনপির শাসনামলে হাওয়া ভবনের দুর্নীতি আর দলীয় নেতাকর্মীদের নানা অপকর্মের কারণে দেশের অর্থনীতি মুখ থুবড়ে পড়েছিল। আওয়ামী লীগ সেই ক্ষত মুছে দেশকে এখন উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। তিনি আরো বলেন, বিএনপি কেবল হাওয়া ভবনের টেকসই উন্নয়ন করলেও বর্তমান সরকার গোটা দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এমপি, মন্ত্রী হবেন, বউয়ের আদেশে চলবেন, ব্যাটা-ভাগনার কথায় এটা হবে না। নিয়ামতপুর সম্মেলন হচ্ছে মার্চ মাসে। এই মাসের প্রতিটি দিন বাঙ্গালীর জন্য ইতিহাস এবং আওয়ামীলীগের জন্য অহঙ্কারের। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এনামুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন খাদ্যমন্ত্রী, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগস্টে যখন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল তখন সব কিছু আওয়ামীলীগের তথা বঙ্গবন্ধুর নিয়ন্ত্রণে থাকা সত্ত্বেও একটিও প্রতিবাদ মিছিলও বের হয়নি। ঠিক তেমনি এখনও সব দিকে আওয়ামীলীগের জয়জয়কার থাকলেও যদি সঠিক নেতা নির্বাচন না করা হয় তাহলে আজকেও দলের দূরদিনে কাউকে কাছে পাওয়া যাবে না। একটিও প্রতিবাদ মিছিল বের করার মত নেতা-কর্মী যাওয়া যাবে না। প্রধান বক্তা খাদ্যমন্ত্রী, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি বলেন, বিএনপি কথায় কথায় মানবাধিকারের কথা বলে, তাহলে শেখ রাসেল, অবলা নারী, মেহেদী রাঙা হাতে নববধূ কী অপরাধ করেছিল? ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যার যে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়েছিল, তখন মানবাধিকার কোথায় ছিল? তিনি আরো বলেন, পিতার ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও মানবিক সব ক্ষেত্রে উন্নয়ন ত্বরান্বিত করেছেন। তাই তার নেতৃত্বে বাঙালি জাতি বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু একটি গোষ্ঠী ও দল দেশের উন্নয়ন, অর্জন ও সুনাম নষ্ট করার জন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ‘বিএনপি আজ কোন মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে? তারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তাদের জন্ম হয়েছে মার্শাল ল’র আঁতুরঘরে।’ সম্মেলনের শুরুতেই উদ্বোধন করেন নওগাঁ-৫ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুল মালেক। নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য আবেদ হোসেন মিলনের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা: রোকেয়া সুলতানা, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিভাস মজুমদার গোপাল, জাবেদ জাহাঙ্গীর। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহাদেবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি, নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান তোতা, বাবু ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। সম্মেলন শেষে আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি ও জাহিদ হাসান বিপ্লবকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন প্রধান বক্তা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here