সকলের গর্ব কর্তব্যপরায়ণ সততা আর মানবিকতার সচিব –জাহাঙ্গীর আলম খান

0
130

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ভালো মন- মানসিকতা, বিচার বুদ্ধি, মূল্যবোধ ও উদার মন, ইচ্ছা শক্তি এবং দায়িত্ব কর্তব্যকাজে মনোযোগী হওয়া, তার অধিনস্তদের কর্তব্যকাজে একদিকে কড়াকড়ি শাসন অন্যদিকে ভালবাসা দেওয়া, নিষ্ঠার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করাটা খুবই কঠিন কাজ । অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে যে এ কাজ গুলো করে তার ইউনিটকে জ্ঞানের মাধ্যমে শৃঙ্খলভাবে রাখতে পারেন তিনিই হচ্ছেন কর্তব্যপরায়ণ মানবিক গুণাবলীর অধিকারী

সরকারের অর্পিত দায়িত্ব পালন করা এবং মূল্যবোধের মাধ্যমে মানুষের প্রতি অতি সহজেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়াটাই হচ্ছে মানবিকতা । মানবিকতার মূলমন্ত্র হচ্ছে মানুষের কল্যাণ, জাতির কল্যাণ, সমাজের কল্যাণ, সাংস্কৃতিক কল্যাণ মোট কথা মানুষকে ভালভাবা, আপন করে নেওয়া, মানুষের জন্য ভাল কিছু করা এবং মানুষের উন্নতি সাধন করার নামই মানবিকতা ।

গত বছর করোনার কারণে ৬৬ দিন দেশে লকডাউনের সময় অনেক সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দেখেছি তাদের ব্যক্তিগত ভাবে অসহায় গরীব মানুষকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করতে । মানুষের সেবা করতে গিয়ে বিভিন্ন পেশাজীবির মতো বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন ।

দীর্ঘ প্রায় ১১বছর লেখালেখির জীবনে আমার চোখে অনেক কিছুই দেখেছি । খুব কাছ থেকে দেখেছি মানবিকতা, অমানবিকতা, নির্মমতা, নিষ্ঠুরতা, কঠোরতা ও ভালাবাসা দেয়া । আজকের এ লেখাটি বলতে পারেন কিছু সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিয়ে বিশেষ করে সচিবদের নিয়ে দিন রাত তারা মানুষের পাশে থেকে তাদের সরকারি সুযোগ সুবিধা জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে ভাবে কাজ করে ।

তারা আমাদের সেবা দিচ্ছে বলেই আমরা নিশ্চিন্তে থাকতে পারছি, চলতে পারছি, কর্মজীবনে, ব্যবসা বাণিজ্যে সবকিছুইতেই বলতে গেলে স্বাধীনভাবে চলছি । শুধু আইন পালন আর অপরাধ প্রতিরোধ বা দমনই নয় দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে একজন স্থানীয় সরকারের সচিবরা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে । তাদের উদ্ভাবনী চেতনা আর পেশাদারিত্ব দিয়ে জনসাধারণের গোড় দুয়ারে বিভিন্ন সেবা ও সৃজনশীলতার পরিচয় দিচ্ছেন

সমস্যা বিপদ আপদ হলেই আমরা প্রথমে ইউনিয়ন পরিষদে যায় সহযোগিতা পেতে। সচিব হিসেবে যোগদান থেকে প্রতিনিয়তই মানুষের কল্যাণে কাজ করে মানুষের মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন জাহাঙ্গীর আলম খানঁ সে ধারাবাহিকতায় ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে জেলার শ্রেষ্ঠ সচিব হিসেবে লোকাল গর্ভনমেন্ট এ্যাওয়ার্ড লাভ করেন। ২০১১সালে সারা বাংলাদেশের ৫জন শ্রেষ্ঠ সচিবের মধ্যে তিনি একজন নির্বাচিত হয়েছিলেন। সে সময় তিনি এলজিইডির আগারগাঁও ঢাকার একদিনের কর্মশালায় সারা দেশের ৫জন সচিবের ট্রিম লিডারের দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের দায়িত্ব পালন করেন, দায়িত্ব পালন অবস্থায় তিনি সর্বস্তরের জনগণের মনে মানবিকতার সচিব হিসেবে পরিচিত লাভ করেছেন আমরা সকলে তার সার্বক্ষণিক মঙ্গল কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here