নিয়ামতপুরে জোরপূর্বক বাগান থেকে আম পাড়ার অভিযোগ

0
42

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নওগাঁর নিয়ামতপুরের ৩ নং ভাবিচা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের শালালপুর গ্রামে আব্দুস সাত্তারের লিজকৃত সম্পত্তিতে লাগানো আমবাগান থেকে জোরপূর্বক আসিনা জাতের আম পেড়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায় আব্দুস সাত্তার শালালপুর গ্রামের একজন স্থায়ী বাসিন্দা এবং সম্মানিত ব্যাক্তি তিনি বিগত ৫০বছর পূর্বে ১০৮ জে এল এর ১ নং খাস খতিয়ানের ১৯২ দাগের ৩১ ডিস্মিল জমি ভুমি অফিস থেকে লিজ গ্রহণ করেন এবং সে জমিতে আসিনা জাতের ২০ টি আমগাছ রোপন করে বাগান তৈরী করেন। গাছের পরিচর্যা থেকে শুরু করে বাগনটি তিনি দীর্ঘদিন ধরে ভোগ দখল করে আসছিলেন। গত ২৭ জুন সকাল ৯ ঘটিকায় একই গ্রামের হোসেনের ছেলে দুলু (২৬) মৃত মনিরের ছেলে হোসেন( ৪৫) মৃত দস্তল্লার ছেলে শমসের আলী (৩৮) শমসেরের ছেলে মোস্তাকিন (১৭) জফিরের ছেলে রফিকুল (২৮) সইর আলীর ছেলে সাদ্দাম(২৮) ও অজ্ঞাত আরও ১০/১২জন বাগানের মধ্যে প্রবেশ করে আম পাড়া শুরু করে।

আম পাড়ার একপর্যায়ে আব্দুস সাত্তারের ছেলে অনিক মাহামুদ এসে বাদা দিলে তাকে বিভিন্ন হুমকি এবং মারপিঠের ভয় দেখিয়ে সেখান থেকে পাঠিয়ে দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শালালপুর গ্রামের একজন সচেতন নাগরিক বলেন সরকার আইন করে দিয়েছে ফসল যে লাগাবে তিনি ঐ ফসলের একমাত্র মালিক জমি যদি সরকারি হয় হোক কিন্তু গাছগুলো লাগিয়েছে সাত্তার তাই আমগুলো সাত্তারের পাওয়া উচিত বলে আমি মনে করি তাছাড়া ওনি এই সম্পত্তি সরকারের কাছ থেকে লিজ নিয়েছে এইভাবে আসিনা জাতের অপরিপক্ক আম জোরপূর্বক নামানো মোটেও ঠিক হয়নি যে আমগুলো পাকতে এখনো প্রায় ২মাস সময় লাগবে সরকারি জমি প্রয়োজনে একমাত্র সরকার নিজেই দখল নিতে পারে আম নামানোর বিষয় টি একটি মহলের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া আর কিছুই নয়।

আম পাড়ার বিষয় টি নিয়ে ঐ গ্রামের একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হোসেন আলীর সহিত কথা বললে তিনি বলেন, এই জমিটি এক সময় কবর স্থান ছিলো এখানে কেউ আমবাগান করলেই জমিটি তার হয়ে যায়না গ্রামবাসীর সকলের সুবিধার্থে বাগান টি দখলে নেয়ার জন্য আম পেড়ে নিয়েছে জমিটি সার্বজনীন কাজে ব্যবহার করা হবে বলে তিনি জানান তিনি আরও বলেন এই সম্পত্তি নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে একাধিকবার বসা হয়েছে।

ভুক্তভোগী আব্দুস সাত্তার জানান আমি সরকারের কাজ থেকে জমিটি লিজ গ্রহণ করেছি এবং আম গাছ রোপণ করে আমি খুব কষ্ট করে গাছগুলো লালন পালন করেছি এ ভাবে বাগানে প্রবেশ করে জোরপূর্বক প্রায় ৫০ মন আম নেমে শুধু আমার ক্ষতি করেছে তা না সরকারি আইন ও বিধি নিষেধ কেও অমান্য করেছে তারা।

আমার যদি কাগজপত্র ঠিক না থাকে আমি এই সম্পত্তি নিব না বিষয় টি নিয়ে তিনি প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন এবং তদন্তপূর্বক তার এই ক্ষতিপূরনের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here