ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে অবৈধভাবে চলছে পুকুর খনন–ভরাট হিসেবে বিক্রয় হচ্ছে মাটি” বেহালদশা রাস্তার মূহুর্তে ঘটতে পারে দূর্ঘটনা

0
13

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নিয়ামতপুর উপজেলার ৩ নং ভাবিচা ইউনিয়নের পাইকড়া পাল পাড়া গ্রামের গিরীশচন্দ্রপালের বড় ছেলে অশিত পাল( ৩২) তার ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে অবৈধভাবে কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে রাতের আধারে ফসলি জমিতে পুকুর খনন করছে বলে জানা গেছে।

সরে জমিনে গিয়ে স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গত কয়েকদিন আগে পাইকড়া পাল পাড়া গ্রামের গিরীশ পালের ছেলে এস কি বি টার মেশিন ট্রাক্টর ভাড়া করে নিয়ে এসে এই এলাকার অপরিতাক্ত ফসলি জমি চৌবাছা খনন করে মাটি গুলো ট্রাক্টর প্রতি ৪ শত টাকা দামে বিক্রয় করছে এবং মাটিগুলো এলজিআরডি রাস্তা সেকেন মোড় থেকে ছাতড়া বাজার অবধি ট্রাক্টরে পরিবহন করায় রাস্তার দুইপাশে প্রচুর পরিমানে মাটি ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকায় জানবাহন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে উঠেছে যে কোন মূহুর্তে সড়ক দূর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে সাধারণ চালক এবং সচেতন মহলের ধারণা।

এ বিষয়ে অশিত কুমার পালের সহিত কথা বললে তিনি বিষয় টি এড়িয়ে যান এবং প্রতিবেদককে জানান উপর মহলের অনুমতি নিয়েই আমি করছি হাত আমার বড় লম্বা।

বিষয়টি নিয়ে ঐ এলাকার ভ্যান চালক জামাল হোসেন প্রতিবেককে জানান আমার মা গতকাল অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় আমি জরুরি ভাবে ছাতড়া বাজারে নিয়ে যেতে গিয়ে ১০ মিনিটির রাস্তা আমাকে ৩০ মিনিটে যেতে হয়েছে তাতে আমার মা যেকোনো মূহুর্তে মারাও যেতে পারতো এই মাটি যদি আমরা গরীব মানুষেরা রাস্তায় ফেলতাম এতক্ষণ তাকে থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে রামপেদানি দেয়া হতো ও নেতা বলে কিছু হবে না।

রাস্তায় মটর সাইকেল অহরী পশু ডাঃ নাজমুল বলেন একটু বৃষ্টি হলেই যে কোন মহূর্তে দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। অতি স্বত্বর এই মাটি কাটা এবং মাটি ট্রাক্টর দিয়ে রাস্তায় পরিবহন করা বন্ধ হওয়া উচিত। বিষয়টি নিয়ে নিয়ামতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সহিত যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান আমরা নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পরেও ওনি চুপিচুপি এই মাটি খনন কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে তবে থানায় কোন লেখিত অভিযোগ পাইনি অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here