,


শিরোনাম:
«» বালিয়াডাঙ্গীতে ৫৩ মধ্যে ৪৮ টি ভূমি-গৃহহীন পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার উপলক্ষে ঘর- প্রেস ব্রিফিংয়ে এউএনও «» ঠাকুরগাঁওয়ে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা «» আশুলিয়া থানা আওয়ামীলীগের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ঠাকুরগাঁওয়ে মুজিববর্ষ ও ঈদ উপহার উপলক্ষে আরও ২৬১২ভূমিহীন পাচ্ছেন জমি ও নতুন ঘর «» আদমদীঘি গৃহ নির্মাণ কাজের অগ্রগতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলন «» আদমদীঘিতে ব্রাকের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের অপেক্ষায় নওগাঁর সাপাহারে ৪৫ টি গৃহহীন পরিবার উদ্বোধন উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিং «» মাদ্রাসার এতিম শিশুদের নিয়ে সেভিয়ার ফাউন্ডেশন রাজশাহী ইউনিট এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» কে এই মহা ক্ষমতাধর শলোক মোল্লা- হরিণাকুন্ডুতে সাংবাদিক কে প্রাণনাশের হুমকি,থানায় অভিযোগ দায়েরঃ বিএমএসএস’র পক্ষে নিন্দা, প্রতিবাদ ও গ্রেফতার দাবী «» সাংবাদিক নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে নওগাঁয় বিএমএসএফের মানববন্ধন

অন্যকে ধর্ষণ মামলায় ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই এখন কারাগারে

বরগুনা প্রতিনিধিঃ বরগুনায় অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে সাজানো ধর্ষণ মামলায় নিজেই আসামি হয়ে কারাগারে গেলেন ছগির (৩৮) নামের এক আইনজীবীর সহকারী। গতকাল শুক্রবার সকালে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করলে বিচারক তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বরগুনা সদর থানা সূত্রে জানা গেছে, বরগুনার এক নারী (৪০) গত বৃহস্পতিবার জাহিদ নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে বরগুনা সদর থানায় মামলা করেন। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে উপপরিদর্শক (এসআই) কেয়া, ওই নারীসহ পুলিশের একটি দল জাহিদের কর্মস্থলে যান। ধর্ষণ মামলার বাদী ওই নারী যাঁর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করেছেন, তাঁকে চিনতে পারেননি। এ ঘটনায় পুলিশের সন্দেহ হলে ওই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে ওই নারী পুলিশকে বলেন, মামলা সূত্রে ছগির নামের একজনের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। ছগির তাঁকে ধর্ষণ করেন। পরে ২০ হাজার টাকার চুক্তিতে ওই নারীকে বলেন, জাহিদের নামে ধর্ষণের মামলার দিতে।

এ বিষয়ে জাহিদ বলেন, ‘আমার সঙ্গে তাঁদের (ওই নারী ও ছগির) কোনো পারিবারিক শত্রুতা নেই। তবে আমার শ্যালিকার সঙ্গে সম্প্রতি তাঁর প্রবাসী স্বামীর বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়। তখন থেকে নানাভাবে পরিবারের সদস্যদের হয়রানি করা হচ্ছে। সম্ভবত এ কারণেই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে।’ তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেন। বরগুনা সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শহিদুল ইসলাম বলেন, পুলিশি তদন্তে ধর্ষণের অভিযোগটি মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। ওই নারীর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ছগিরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়ায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আরও কেউ জড়িত আছেন কি না, তা তদন্তে বের হবে বলেও জানান তিনি।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ