,


শিরোনাম:
«» নিয়ামতপুরে ককটেল বিস্ফোরণ-ছাত্রলীগের নেতাসহ আহত ৪ «» ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এর দ্বিপাক্ষিক বৈঠক «» নিয়ামতপুরে হঠাৎ করে ককটেল বিস্ফোরণ উপজেলা ছাত্র লীগের সদস্য সিরাজ উদ্দিন নিশান সহ ৪ জন গুরুতরভাবে আহত «» কম্বোডিয়ার রাজধানী নমপেন এ সে দেশের কমার্স মিনিস্টার পান সুরসাক এর সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার (এমপি) «» নওগাঁয় আ.লীগ নেতার উদ্দেশ্যে ককটেল বিস্ফোরণ প্রতিবাদে বিক্ষোভ «» বাঘায় কাদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্রিয়েটিভ ট্যালেন্ট হান্ট শীর্ষক মেধা প্রতিযোগিতা ও পুরুষ্কার বিতরণ «» ঠাকুরগাঁওয়ে গড়েয়া মাঠ রক্ষা করতে জীবন চলে যায় তবুও মাঠ রক্ষা করবো- এলাকাবাসী «» কুড়িগ্রামে নানা আয়োজনে ৫১ তম জাতীয় সমবায় দিবস পালিত «» ভালো কাজে পুলিশ-জনতার সম্পৃক্ততা বেড়েছে-খাদ্যমন্ত্রী «» শীতের সবজিতে মিলছে ভালো দাম চাষিরা খুশি

ঠাকুরগাঁওয়ে হোসেনগাঁও দাখিল মাদ্রাসায় পিয়ন পদের আশায় ১৬ শতাংশ জমি দান, চকুরি না পাওয়ায় জমি দখল

মোঃ মজিবর রহমান শেখঃ
ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলায় প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী চাকরি না দেওয়ায় মাদ্রাসাকে দেওয়া ১৬ শতাংশ জমি দখল নিয়েছেন নুরজামাল নামের এক দাতা। ২৮ সেপ্টেম্বর বুধবার রানীশংকৈল উপজেলার হোসেনগাঁও দাখিল মাদ্রাসায় এ ঘটনা ঘটে। এতে মাঠের জায়গা কমে গেছে এবং শিক্ষার্থীরা সেই মাঠে কোনভাবেই খেলাধুলাও করতে পারবে না।

জানা গেছে, ১৬ শতক জমি দেওয়ার বিনিময়ে হোসেনগাঁও এলাকার বাসিন্দা খাইরুল ইসলাম ঐ মাদ্রাসায় পিয়ন পদে বিনা বেতনে চাকরি করতেন। ২০১৩ সালে মারা যাওয়ার পরে তাঁর ছেলে নুরজামালকে মৌখিকভাবে পদায়ন করেন মাদ্রাসার তৎকালীন সুপার আজিজর উদ্দীন। তবে গত ৬ জুলাই মাদ্রাসাটি এমপিওভুক্ত হয়। এরপর মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদ নতুন করে পিয়ন পদে ১ জনকে নিয়োগ দেন। নিয়োগ বঞ্চিত হয়েই নুরজামাল মাদ্রাসার মূল মাঠের পাশ থেকে নিজের জমি আমিন দিয়ে মেপে দখলে নেন। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে সরেজমিনে দেখা গেছে, নুরজামাল ১ জন আমিন দিয়ে মাদ্রাসার মাঠের মূল অংশ থেকে মাপজোপ করে ১৬ শতাংশ নির্ধারণ করে সীমানা পিলার বসিয়ে দিয়েছেন। এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির মাঠের জায়গা কমে গেছে এবং শিক্ষার্থীরাও মাঠে খেলাধুলা করতে পারবে না।

এ প্রসঙ্গে নুরজামাল বলেন, ‘দীর্ঘদিন আমি ও আমার বাবা বিনা পারিশ্রমিকে চাকরি করেছি। মাদ্রাসাটি এমপিওভুক্ত হওয়ার পর আমাকে বাদ দিয়ে আরেকজনকে নিয়োগ দিচ্ছেন।’ নুরজামাল আরও বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে কথা ছিল জমির বিনিময়ে চাকরি দেওয়া হবে। নিয়োগ চূড়ান্ত হলেই জমি দলিল করে দেওয়ার কথা ছিল। যেহেতু আমাকে নিয়োগ দেওয়া হয় নাই, তাই জমি দখলে নিয়েছি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে, সদ্য যোগ দেওয়া মাদ্রাসা সুপার নিজামউদ্দীন এ বিষয়ে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ নিয়ে জানতে মোবাইল ফোনে মাদ্রাসার ব্যবস্থাপনা কমিটির বর্তমান সভাপতি আজিজর উদ্দীনকে একাধিক বার কল করা হয়। কিন্তু ফোন না ধরায় তাঁর কোনো মন্তব্য জানা যায়নি।
এ নিয়ে জানতে চাইলে রানীশংকৈল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৈয়ব আলী বলেন, ঘটনাটি স্পর্শকাতর। খেলার মাঠ না থাকলে তো সমস্যা। তাই বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ